মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন
টপ নিউজ
পেকুয়ায় অপহৃত স্কুল ছাত্রীর খোঁজ মিলছেনা চকরিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজ প্রভাষকের মৃত্যু পেকুয়ায় স্বপ্নের নতুন ঘর পেল ৬০টি ভূমিহীন পরিবার পেকুয়ায় এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে জখম পেকুয়ায় খালে বাঁধ দিয়ে মাছ শিকার, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত চকরিয়া ব্লাড ডোনার’স সোসাইটির বিশ্ব রক্তদাতা দিবস উদযাপন সুনামগঞ্জে ডাঃ এনামুল হকের ভূল এন্ট্রিবায়োটিক প্রয়োগের ফলে এক নবজাতক শিশুর মৃত্যু পেকুয়ায় সভাপতিকে মামলায় জড়ানোর প্রতিবাদে মৎস্যজীবিলীগের সভা চকরিয়ায় বনবিভাগের উচ্ছেদ অভিযান ১ একর জায়গা দখলমুক্ত কাকারা মিনিবাজার ভিত্তহীন সমবায় সমিতি লি:এর কমিটির বিরুদ্ধে অনিয়ম লুটপাট দূর্নীতির অভিযোগ

দিরাই কালনী পাড়ের ৬ শতাধিক জেলে ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত

Reporter Name
  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২ মে, ২০২১
  • ২৪২ দেখুন

 

মোঃবদরুজ্জামান বদরুল
সুনামগঞ্জ থেকে
সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার কালনী নদী (প্রকাশিত শয়তানকালী ২য় খন্ড) এর পূর্ব পাড়ের চান্দপুর গ্রামের প্রকৃত প্রায় ৬শত জেলে পরিবার তাদের অধিকার হতে বঞ্চিত হওয়ার কারনে মানবেতর জীবন যাপন করছে। সুনামগঞ্জ জেলা তথা সিলেট বিভাগের মধ্যে সর্ববৃহৎ জাতীগত, সরকার কতৃর্ক নিবন্ধিত প্রায় ৬শত মৎস্যজীবির গ্রাম এই চান্দপুর। তাদের একমাত্র পেশা নদীতে মাছ ধরে পরিবার পরিজনের জীবিকা নির্বাহ করা। সারা বছর মাছ ধরা ছাড়া তাদের আর কোন পেশা নাই, জমিজমাও নাই।

যুগ যুগ ধরে এসব জেলে সম্প্রদায় শয়তানকালী ২য় খন্ড নদীতে মাছ ধরে স্ত্রী সন্তানাদি নিয়ে কোন রকমে বেচে আছে এবং এই নদীতে গোসল সহ দৈনন্দিনের কাজ কর্ম করে থাকে।

১৪২৫ বাংলা সনে এই জলমহালটি লীজ আনার জন্য জেলেদের পক্ষে নিয়মানুযায়ী আবেদন করলে, উপজেলা জলমহাল ব্যবস্থাপনা কমিটি লীজ দেওয়ার জন্য মতামত প্রকাশ করলেও কোন এক কারনে প্রকৃত মৎস্যজীবি, তীরবর্তীদের বঞ্চিত করে দুরবর্তী ও অমৎস্যজীবী, দিরাই উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সমিতিকে লীজ প্রদান করা হয়, এবং জেলেদের অজান্তে খাজনাদি পরিশোধ করেন, উক্ত বিষযে হাজার হাজার মৎস্যজীবিরা তাদের স্ত্রী সন্তান নিয়ে মানববন্ধন করে,এতে এলাকার জনপ্রতিনিধি সহ রাজৈনতিক ব্যক্তিবর্গ অংশ গ্রহন করেন। বিভিন্ন দপ্তরে লীজ বাতিলের জন্য আবেদন করলে, উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগন তদন্ত করলেও কি হয় তা জানেননা, তখন জেলেরা ভাগ্যের হাতে তাদেন জীবন ছেড়ে দেন।

ইউপি সদস্য সুকেষ বর্মণ বলেন স্থানীয এমপি সহ সকলেই নদীটির লীজ বাতিল করে জেলেদের অধিকার আদায়ে চেষ্টা করেন। অথচ এখানের সম্মানীত শ্রদ্ধেয় বীর মুক্তিযোদ্ধাগনের এই নদীটি প্রযোজন ছিল না, কারন তারা কেউই মাছ মারে না, তাদের অনেকের ছেলে মেয়ে ডাক্তার, শিক্ষক, চাকুরীজীবি তারপরও “জাল যার জলা তার” এই নীতি অনুস্মরন না করে, প্রকৃত জেলেদেরকে অধিকার হরন করে লীজ দেওয়া হয়। চান্দপুর মৎস্যজিবী সমবায় সমিতির সভাপতি নিলমনি বর্মণ বলেন আমরা জেলেগন নদীঘাটে মাছ মারতে না পেরে, স্ত্রী সন্তানি নিয়ে অনাহারে থাকিয়া, কেউ কেউ দিনমজুরের কাজ করছে আবার কেউ কেউ এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। আমরা জেলেদের শত শত জাল নৌকা নদীঘাটে বাধা ও শুকনোয় পড়ে আছে। ১৪২৭ বাংলা সনে সম্মানীত বীর মুক্তিযোদ্ধাগনের লীজের মেয়াদ শেষ হওয়ার খবর শোনে আমরা জেলেরা আশায় বুক বেধে ছিলাম, এবার আমরা স্থানীয় এমপি মহোদয়ের পরামর্শে আমরা জেলেদের অধিকার পুনরুদ্ধার করার জন্য সাধারন টেন্ডারে লীজ পাওয়ার জন্য আবেদন করবো। কিন্তু জেলেদেরকে পুনরায় অধিকার বঞ্চিত করার জন্য ক্ষমতা ও টাকার প্রভাব কাটিয়ে অনৈক ভাবে চলতি নদীকে বদ্ধ জলমহাল দেখিয়ে “উন্নয়ন স্ক্রীমে” আনার চেস্টা করছেন। অথচ এই কালনী নদী প্রকাশিত শয়তানখালী ২য় খন্ড নদীটি একটি চলতি নদী, সারা বৎসর ৬০/৭০ ফুট পানি থাকে। এই নদী কোন অবস্থাতেন উন্নয়ন স্ক্রীমে দেওয়ার যোগ্য নয়।
ইতি মধ্যে জেলেরা এই আবেদন বাতিলের জন্য স্থানীয় এমপি ড.জয়া সেনগুপ্তার ডিও লেটার সহ জেলা প্রশাসক ও ভুমি মন্ত্রী মহোদয় বরাবরে আবেদন করেন। এছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবরে জেলেদের অধিকার পুনরুদ্ধারের জন্য আবেদন করা হয়। তাই উদ্ধর্তন কর্মকর্তাগনের নিকট জেলেদের প্রানের দাবী সরেজমিন পরিদর্শন করে উন্নয়ন স্ক্রীম বাতিল করে, সাধারন টেন্ডারের মাধ্যমে প্রকৃত মৎস্যজীবী ও তীরবর্তীদেরকে লীজ দিয়ে প্রকৃত জেলেদের অধিকার ও “জাল যার জলা তার” এই নীতি বাস্তবায়ন করা হোক। এ বিষয়ে জেলেরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্শন করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

Design & Develop BY Coder Boss
© Copyright 2019 All rights reserved BBC Morning
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102