শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:০৯ অপরাহ্ন
টপ নিউজ
কক্সবাজারের পুলিশ সুপারকে রাজশাহীতে বদলি,হাসানুজ্জামান নতুন এসপি সিনিয়র সাংবাদিক জহিরুল ইসলামের ফেসবুক টাইম লাইন থেকে “ইয়াছমিন সুলতানার করোনা জয়” পেকুয়ার মগনামায় ৭৪২জন জেলেদের মাঝে চাল বিতরণ পেকুয়ায় নদী থেকে যুবকের ভাসমান লাশ উদ্ধার পেকুয়ায় সোনাইছড়িতে প্রতিষ্টিত হচ্ছে বীর মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দিন আহমদ স্কুল পুরান বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়  অর্ধ শতাব্দির ও বেশি সময়ের ঐতিহ্য বহন করে করোনাভাইরাসে অভিনেতা সাদেক বাচ্চুর মৃত্যু কক্সবাজারের মহেশখালীতে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ সুনামগঞ্জের শাল্লায় ইউপি সদস্য আ: নূর যখন চোর চক্রের প্রধান, থানা পুলিশের ভয়ে মেম্বার ও চোর পলাতক নিউজ পোর্টাল”দৈনিক নূরের দর্পণে”র আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ কক্সবাজারের রেঞ্জার-বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে

Reporter Name
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ১৪৮ দেখুন

মনির আহমদ,কক্সবাজারঃকক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের খুটাখালী বনবিটের গাছ ও বনভুমি দখল-বিক্রী করে আড়াই হাজার কোটি টাকার ক্ষতি করার অভিযোগ উঠেছে রেঞ্জার-বিট কর্মকর্তার বিরোদ্ধে। বনদস্যুর সাথে আঁতাত করে সংরক্ষিত বনের মুল্যবান গর্জন, সেগুন, ঢাকিজাম গাছ ও বনভুমি দখল বিক্রী এবং পাকা দালান তৈরীর অনুমতিতে এক হাজার কোটি টাকা হাতানোর তদন্ত দাবী করেছেন আবেদনকারী সৈয়দ আকবর নামের এক ভিলেজার।

প্রধান বন সংরক্ষকের কাছে লিখিত আবেদনে জানা যায়, বিগত ২০১৪ ইংরেজীতে বনে পাহারারত অবস্থায় তৎকালীন খুটাখালীর বনবিট কর্মকর্তা আকরাম আলীর ( বর্তমান ফুলছড়ীর বিটের কর্মকর্তা) সাথে বনপাহারার দায়িত্ব পালন কালে একদল চিহ্নীত বনদস্যুর হামলায় গুরুতর আহত হন তিনি ও বিট কর্মকর্তা আকরাম আলী। চট্টগ্রাম সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে ভাল হয়ে মামলা নং ১৮/১৪ ধারা: ১৪৩, ১৮৬, ৩৫৩, ৩৩২, ৩৩৩ ও ৩০৭ দন্ডবিধি দায়ের করেন। ওই ঘটনার আহত হওয়া একজন ত্যাগী ভিলেজার সৈয়দ আকবর। ভিলেজার হিসাবে বনজ সম্পদ রক্ষনাবেক্ষনের দায়ীত্বে সততার আরো অনেক নজির রয়েছে তার।
তিনি জানান, কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের খুটাখালী বনবিট কর্মকর্তা রেজাউল করিম ১বৎসর ৪ মাস আগে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকে রেঞ্জ কর্মকর্তা সৈয়দ আবু জাকারিয়াকে ম্যানেজ করে
বনবিট কর্মকর্তা রেজাউল করিম গত প্রায় দেড় বছরে দুই থেকে আড়াই হাজার কোটি টাকার গর্জন ও সেগুন কাট বিক্রী করেছেন, অর্ধশতাধিক পাকাবাড়ী নির্মানের অনুমতি সহ বাড়ী ভিটার দখল বিক্রী করে অন্তত: এক হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে সরকারী বনের আড়াই হাজার কোটি টাকার ক্ষতি করেছেন এবং বর্তমানেও অস্ত্রধারী বনদস্যু সৃষ্টি করে ভিলেজারদের মামলা-হামলার ভয় দেখিয়ে গাছ ও বনভুমি লুট,বিক্রী অব্যাহত রেখেছেন। এতে উজাড় হয়েছে খুটাখালীসহ আশপার্শ্বের বনজ সম্পদ। তাদের লুটপাটের মধ্যে রয়েছে হাজীর ঘোনা মাদার ট্রী গর্জন, ১৯৫৬ সালের ভিলেজারের হাতেগড়া বাগানের গাছ উজাড়, মধুর শিয়া এলাকার ১৯৮০ সনের বাগানের গর্জন গাছ, ১৯৮০ সনের গয়ালমারা বাগানের গর্জন, ১৯৮৪ সনের শিবাতল্যাখোলা আব্দুল কাদেরের ঘোনা, শনখোলা ১৯৮৪ সনের বাগানের গর্জন, ১৯৮৮ সনের মুইচ্ছা কাটা বাগানের গর্জন, তানজুক কাটা ২০১২-১৩ এর সামাজিক বনায়ন এলাকার গর্জন ও ঢাকিজাম গাছ, নুরুল কবিরের খামারের পুর্বপাশ্বে ফলদ বাগানের নিকটের ৮ফুট ব্যাসের গর্জন, মোজাহিদ ক্যাম্পের ১৮-১৯ সালের এনআর বাগানের পুরানো গর্জন ১০-১২ টি, ফান্ডাছড়ি এলাকার গোদার পুর্বে আলম বকসুর খামার ভিটার মাদার ট্রী কেটে বিক্রী করছে। সেগুন বাগিচায় অর্ধ শতাধিক পাকা বাড়ী ও ভবন, নির্মানের অনুমতি দিয়েছেন। তাদের অব্যাহত লুপপাট ও বন উজাড়ের ফলে ভিলেজারদের মাঝে চরম অসন্তুষ বিরাজ করছে। তার লুটপাটের কথা প্রকাশ হবার ভয়ে গত দেড় বছরে ভিলেজারদের নিয়ে একটি মিটিং বা মতবিণিময় সভা করতে ব্যর্থ হয়েছেন। আবেদনে সৈয়দ আকবর ভিলেজারের দাবী বনবিট কর্মকর্তা রেজাউল করিম এবং রেঞ্জ কর্মকর্তা সৈয়দ আবু জাকারিয়া আগামী একমাসও স্বপদে থাকলে বনের ব্যাপক ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। তাই বন রক্ষার সার্থে তদন্ত পুর্বক এসব দুর্নীতিবাজদের অপসারন সহ শাস্তির দাবী করেন। এ ব্যাপারে রেঞ্জার সৈয়দ আবু জাকারিয়া কয়েকটি মাদার ট্রী গর্জন কাটা যাবার বিষয় এবং পাকা ঘর নির্মানের কথা স্বীকার করে বলেন, “আমার অগোচরে কয়েকটি গাছ কাটা গেছে, চোরের সাথে যুদ্ধ করে কুলাইতে পারছিনা। তারপরো আমি তদন্ত করছি। ঘর বাঁধা ও বনভুমির দখল বিক্রীও একইভাবে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বললেও তার কার্যকর প্রমান তিনি দিতে পারেন নি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

Design & Develop BY Our BD It
© Copyright 2019 All rights reserved BBC Morning
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102