শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন
টপ নিউজ

খুটাখালীতে অবৈধ বালু উত্তোলনে বর্ষার শুরুতে সড়কের বেহাল দশা

Reporter Name
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১৬ জুন, ২০২০
  • ১৩৪ দেখুন

চকরিয়া প্রতিনিধিঃচকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার ফলে বর্ষা শুরুতে গ্রামীণ সড়কের ফাঁটল সহ বেহাল দর্শা:দেখার যেন কেউ নেই।এমন দৃশ্য দেখা যায়,অত্র ইউপির ৬নং ওয়ার্ডের সেগুনবাগিচা থানচুককাটা গ্রামে।
সরেজমিনে গেলে এলাকাবাসী জানান,সেগুন বাগিচার গ্রামীণ সড়কের অর্ধেক অংশে ইট বসলেও বাকী কিছু অংশ সহ থানচুককাটা হয়ে বাগানপাড়া পর্যন্ত প্রায় দেড় কিঃমিঃজায়গা জুড়ে সড়কটি এখন কাচাঁ।যেখানে প্রায় দুইশত পরিবারের বসবাস।এছাড়া উক্ত সড়কের মধ্যেখানে থানচুককাটা গ্রামের শুরু যে কালর্ভাট। এই কালর্ভাট সংলগ্ন দক্ষিণ পাশে লাগোয় জমিকে খাল বানিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও ডেলিভারী দেওয়ার কারণে,চলিত বর্ষার শুরুতে গ্রামীণ সড়কের ফাটল জায়গা ভেঙ্গে নেমে যাচ্ছে।ফলে এলাকাবাসী বস্তাভর্তি মাটি দিয়ে রক্ষা চেষ্টা চালিয়ে গেলেও বর্ষার ভরা মৌসুমে সড়কটি নিচের দিকে ধেপে যেতে পারে বলে ধারণা করেন।এসময় রক্ষা করার কোন উপায় দেখছেনা।বর্ষার শুরুতে সামান্য বৃষ্টিতে সড়কটি কাঁদায় পরিণত হয়ে পিচ্ছিল হয়ে গেছে।সমগ্র দেশে সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন হলেও,ছোঁয়া লাগেনি এখানে।এরমধ্যে খুটাখালী ছড়ার লাগোয়া ধানি জমিকে কেটে ছড়ার পানি ঢুকিয়ে সেখানে ড্রেজার মিশিন বসিয়ে প্রায় ৮/১০ হাত করে পানি মিশ্রিত অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করায়,আজ সড়কের বেহাল দর্শা।বালু উত্তোলনকারীকে বাধাঁ দিলনা স্হানীয় প্রশাসন ও বনবিভাগ।এলাকার বেশিভাগ লোকজন বলেন,এই জমিগুলো বনবিভাগের জমি।কিন্তু উৎকোচের বিনিময়ে বনবিভাগ কর্তৃক কোন বাধাঁ আসেনি।তাই স্হানীয় প্রশাসনও নিরব ছিল।আর এলাকাবাসি জনস্বার্থে ভবিষ্যৎ চিন্তা করে চলাচলের কথা ভেবে বালু উত্তোলনকারীকে বাধাঁ দিতে ভয় পায়। উত্তোলনকারী হলেন,অত্র গ্রামের বাসিন্দা মৃত মোকতার আহমদের পুত্র ওবাইদুল(ড্রাইভার ওবাদুল্লাহ)কে নিষেধ করলে, তাৎক্ষণিক সে বাধাঁকারীকে হামলা করে।অথবা রাত্রে আক্রমণ করবে ভয়ে কেউ মূখ খোলে না।যার ফলে আজ গ্রামীণ এ সড়কের বেহাল দর্শা।গোপন সূত্রে এলাকাবাসি বলেন,অবৈধ বালু উত্তোলনকারী ওবাইদুল্লাহর প্রায় ডজনখানিক মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী।ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী কর্তৃক অবৈধ বালু উত্তোলন।তাকে সহযোগিতা করে তার ভাই হামিদ।সব চেয়ে বড় বিষয় হল,তাকে পুলিশের হাত থেকে রক্ষা করে তার ছোটভাই পুলিশের সোর্স সোলতান।আইনের মানুষের সোর্স ঘিরে করলেও নিজের ভাইকে অপরাধ জগতে রেখে পুলিশের হাত থেকে বাচিঁয়ে রাখেন।এভাবেই ওবাইদুলের কর্মকান্ড চলে বছরের পর বছর।
এক সময় বালু উত্তোলনকারী ওবাইদুর সাথে কথা বললে,তখন তিনি বলেছিলেন এই জমি বন্দোবস্তু জমি।এই জমিনে চাষ হচ্ছে না।কারণ ছড়া থেকে সরকারী ইজারাদারেরা বালু উত্তোলন করার ফলে জমি এখন বেশী উচুঁ হয়ে গেছে।তাই জমির উপরে দেড় ফুট মত মাটি থাকলেও নিচে সব বালি।ফলে বর্ষা নামলে ছড়া ঢলের পানিতে ভেঙ্গে যায়।তাই আমিও উপর মাটি নিয়ে ফেলে নিচের বালু গুলো উঠাচ্ছিল বলে স্বীকার করেছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

Design & Develop BY Our BD It
© Copyright 2019 All rights reserved BBC Morning
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102