সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:১৯ পূর্বাহ্ন

কৃষকের জন্য ৫০০০ কোটি টাকার তহবিল

Reporter Name
  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১২ এপ্রিল, ২০২০
  • ২১১ দেখুন

ঢাকাঃ
করোনাভাইরাসের অভিঘাতে অর্থনীতির ক্ষতির মধ্যেও কৃষি উৎপাদন অব্যাহত রাখতে গ্রামের ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষিদের জন্য পাঁচ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনা তহবিল করার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।পাশাপাশি সারে ভর্তুকি বাবদ আগামী অর্থবছরের বাজেটে ৯০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

করোনাভাইরাস সঙ্কট মোকাবেলায় দিক নির্দেশনা দিতে রোববার ঢাকায় গণভবন থেকে খুলনা ও বরিশাল বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রীর এই প্রণোদনার ঘোষণা আসে।

তিনি বলেন, “আমাদের শিল্প এবং ব্যবসা বাণিজ্য যাতে অব্যাহত থাকতে পারে, সেজন্য প্রায় ৭২ হাজার কোটি টাকার একটা প্রণোদনা ইতোমধ্যে ঘোষণা করেছি। কিন্তু আমরা কৃষিপ্রধান দেশ, আমাদের কৃষিকাজ অব্যাহত রাখতে হবে।”

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কৃষি খাতের জন্যও ‘বিশেষ উদ্যোগ’ নেওয়ার কথা জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, “কৃষিকাতে চলতি মূলধন সরবরাহের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক ৫০০০ কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন করবে। শুধু কৃষি খাতের জন্যই এই ৫০০০ কোটি টাকার প্রণোদনা ফান্ড আমরা তৈরি করব।”

কেবল গ্রাম অঞ্চলের ক্ষুদ্র ও মাঝরি চাষিরাই এ তহবিল থেকে সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ সুদে ঋণ পাবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “তারা কৃষি, ফুল ফল, মৎস্য চাষ, পোল্ট্রি, ডেইরি ফার্ম- ইত্যাদি উৎপাদনে এখান থেকে সহায়তা পাবেন। যাতে করে কোনো মানুষ যেন কষ্ট না পায়, সেদিকে লক্ষ রেখেই আমরা এই ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা, শুধু এই কৃষি খাতে দিচ্ছি। যাতে আমাদের উৎপাদন বৃদ্ধি পায়।”

পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মাঝে বীজ ও চারা বিতরণের জন্য ১৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হবে।

কৃষি উৎপাদন যাতে কোনোভাবে ব্যাহত না হয়, সেজন্য আগামী অর্থবছরের বাজেটে সারে ভর্তুকি বাবদ ৯০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হবে বলেও জানান শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, “কিছুদিনের মধ্যে বোরো ধান উঠবে, কৃষক যেন এই ফসলের ন্যায্য দাম পায়, সেদিকে লক্ষ্য রেখে খাদ্য মন্ত্রণালয় গতবছরের চেয়ে বেশি ধান চাল ক্রয় করবে। ২ লাখ মেট্রিক টন বেশি ক্রয় করবে, সেই উদ্যোগটা নেওয়া হয়েছে।”
ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজে যান্ত্রিকীকরণের জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। আরও ১০০ কোটি টাকা এ খাতে বরাদ্দ দেওয়ার ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, “ইতোমধ্যে আরেকটা উদ্যোগ চলমান আছে। কেউ পেঁয়াজ, মরিচ, রসুন, আদাসহ মসলাজাতীয় কিছু উৎপাদন করলে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে মাত্রা ৪ % সুদে ঋণ দেওয়া হয়। এটাও অবাহত থাকবে।”

করোনাভাইরাসের এই মহামারীর কারণে বিশ্বে ‘মারাত্মক খাদ্যাভাব’ দেখা দিতে পারে আশঙ্কা করলেও বাংলাদেশ পরিকল্পনা নিয়ে উৎপাদন বাড়াতে পারলে অন্যদেরও সহায়তা করতে পারবে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “আমাদের মাটি আছে, মানুষ আছে। আমাদের মাটি অত্যন্ত উর্বর। আমরা কিন্তু নিজেদের চাহিদা পূরণ করেও অনেককে সাহায্য করতে পারব যদি আমরা যথাযথভাবে খাদ্য উৎপাদন করতে পারি। সেটা আমাদের করতে হবে।

“যাতে আমাদের দেশের মানুষ কষ্ট না পায়, আবার দরকার হলে আমরা অনেক মানুষকে বা অনেক দেশকে সহযোগিতা করতে পারি বা রপ্তানি করতে পারি… সেইভাবে আপনারা উৎপাদন বাড়াবেন। কারো এতটুকু জমি যেন অনাবাদী না থাকে।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমাদের শিল্প কৃষি সবক্ষেত্রেই আমরা ব্যাপকভাবে প্রণোদনা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি, কারণ আমরা জানি, আমাদের অনেক উন্নয়নের কাজ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। কিন্তু সব থেকে বড় কথা এখন মানুষ বাঁচানো এবং মানুষের জীবনযাত্রা যাতে অব্যাহত থাকে সেদিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেওয়া।”

সেজন্য কৃষক, শ্রমিক, দিনমজুর থেকে শুরু করে কামার, কুমার, তাঁতি, জেলে- সব শ্রেণির মানুষকে সহযোগিতা করতে সরকার ‘সদা প্রস্তুত’ বলে জানান সরকারপ্রধান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

Design & Develop BY Our BD It
© Copyright 2019 All rights reserved BBC Morning
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102